আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে প্রথমবার আমদানি শুরু করা হল পেঁয়াজ

শুটকি,আদা ও গমের পর এই প্রথমবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়া স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। রোববার দুপুরে ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান আমদানিকৃত ২৪ দশমিক ২৫০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ স্থলবন্দরের গুদাম থেকে খালাস করে। এর আগে গত বৃহস্পতিবার সকালে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্য থেকে একটি ট্রাকে করে পেঁয়াজগুলো বন্দরে প্রবেশ করে। এসব পেঁয়াজ আমদানি করে রাজধানীর শওগাত ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল।
বন্দরের সিএন্ডএফ এজেন্ট মা-মণি এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী ইলিয়াস মিয়া জানান, এবারই প্রথম এই বন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। আমদানিকৃত পেঁয়াজের মূল্য প্রায় সাড়ে পাঁচ লাখ টাকা। প্রতিটন কেনা পড়েছে ২১৭দশমিক ৬২ ডলার। বাজার দর সন্তোষজনক হলে এই বন্দর দিয়ে আরো পেঁয়াজ আমদানি করা হবে বলে তিনি আরো জানান।
স্থলবন্দরের সুপারিনটেনডেন্ট মোঃ সামাউল ইসলাম জানান, আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান চার হাজার ৫১১ দশমিক ৮২ টাকা বন্দর মাসুল পরিশোধ করলে আমদানিকৃত পেঁয়াজ আমদানিকারককের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়।
স্থলবন্দরের সিএন্ডএফ এসোসিয়েশনের সভাপতি মোবারক হোসেন বলেন, শুটকি, আদা ও গমের পর এই বন্দর দিয়ে প্রথমবারের মতো পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। সব ধরনের পন্য আমদানির অনুমোদন পেলে বন্দরের রাজস্ব আয় আরো বাড়বে। সেই সাথে ব্যবসায়িরাও অনেক লাভবান হবে।
স্থলবন্দরের রাজস্ব কর্মকর্তা কামরুজ্জামান জানান, পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে আমদানিকৃত পেঁয়াজের ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। আমদানিকৃত পেঁয়াজ থেকে সর্বসাকল্যে রাজস্ব আয় হয় ৬৬ হাজার ৮৫৮ টাকা।