মায়ের সাথে অভিমান করে শিশু কন্যার আত্মহত্যা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় মায়ের সাথে অভিমান করে সুমাইয়া আক্তার (১৩) নামে এক শিশু কীটনাশক পান করে আত্মহত্যা করেছে। শনিবার রাতে উপজেলার দক্ষিণ ইউনিয়নের আব্দুল্লাহপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। শিশু সুমাইয়া আব্দুল্লাহপুর গ্রামের মনির হোসেনের কন্যা। রোববার দুপুরে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, দিনমজুর মনির হোসেনের কন্যা সুমাইয়া হীরাপুর শহীদ নোয়াব মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ শ্রেণীর ছাত্রী। তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে সে সবার বড়। শনিবার বিকালে লেখাপড়াসহ ঘরের কাজকর্ম না করার কারণে তার মা তাকে প্রচন্ড বকাঝকা করে। সন্ধ্যায় সবার অজান্তে অভিমানী সুমাইয়া ঘরে থাকা পোকা মারার টীকনাশক পান করে। এতে সে অসুস্থ হয়ে পড়লে পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।পরে সেখানে অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরে হাসপাতালে প্রেরণ করে। রাত ১০ টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মৃত্যুর কুলে ঢলে পড়ে।
থানার সহকারি পরিদর্শক ও মরদেহ উদ্ধারকারি কর্মকর্তা জাকির হোসেন জানান, মায়ের সাথে অভিমান ও ঝগড়া করে শিশুটি কীটনাশক পান করে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় । প্রাথমিক অনুসন্ধানেও এটি আত্মহত্যা বলেই মনে হচ্ছে।
আখাউড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক মোঃ মিজানুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।এটি হত্যা না আত্মহত্যা সেটি নিশ্চিত করার জন্য মরদেহ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।