ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তার ২
এখনো অধরা মূল আসামি মামুন!

অনলাইন ডেস্ক—-

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গতকাল আসামির ছুরিকাঘাতে পুলিশের একজন সহকারি উপ-পরিদর্শক (এএসআই)আমির হোসেন খুনের ঘটনায় পুলিশের ব্যাপক অভিযানে গ্রেফতার করা হয়েছে দুজনকে তবে এখনো অধরা রয়ে গেছে মূল আসামি মামুন।

হত্যার পর থেকেই মাঠে তোরজোর অভিযান চালায় পুলিশের একাধিক টিম,তার মধ্যে তারা শনিবার (১৮/৭) ভোর রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার মাছিহাতা ইউনিয়নের চাঁনপুর ও শাহপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে মামলার আসামি ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার (এসবি) পরিদর্শক (ডিআইও-১) মো.ইমতিয়াজ আহাম্মেদ গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গ্রেফতারকৃত দুজন হলেন, হত্যাকান্ডের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত মামুন মিয়ার ছোট ভাই চাঁনপুর গ্রামের মুছা মিয়ার ছেলে ইসমাইল (২০) ও একই গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে আবুল হোসেন (৪০)।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন জানান, এ ঘটনায় আহত এএসআই মণি শঙ্কর চাকমা বাদি হয়ে শুক্রবার রাতেই পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ৫/৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।
হত্যাকাণ্ডে মূল অভিযুক্ত মামুনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

উল্লেখ্য, গতকাল শুক্রবার বিকেল সোয়া পাঁচটার দিকে পাঘাচং বাজারে ডাকাতির প্রস্তুতি মামলার গ্রেপ্তারি পরোয়ানাভুক্ত আসামি মামুনকে গ্রেপ্তারের সময় ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে সে ছুরি দিয়ে এএসআই আমির হোসেনের বুকের বাম পাশ ও মাঝখানে আঘাত করে।
এতে এএসআই আমির মাটিতে লুটিয়ে পড়লে সহকর্মী মণি শঙ্কর চাকমা সহ স্থানীয়রা তাকে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এদিকে নিহত এএসআই আমির হোসেন গত ছয় দিন আগে নিজের ফেইসবুক আইডিতে লাইভে এসে তাত্ত্বিক গান গেয়েছিলেন সেই গান যে এক সপ্তাহের ব্যবধানে তার বাস্তবতায় রূপ নেবে তা কি করে জানতো ?
তার গেয়ে যাওয়া সেই গানটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তোলপাড় চলছে।
তার মৃত্যুতে জেলার বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষের মধ্যে দুঃখ প্রকাশ করতে দেখা গেছে।
তবে এখনোও মূল আসামি মামুন গ্রেফতার না হওয়ায় জনমনে অস্বস্তি দেখা যাচ্ছে।