নবীনগরের এমপি বরাবর খোলা চিঠি জাপান প্রবাসী আব্দুল্লাহ আল মোকতাদির!

মাননীয় সাংসদ,
জনাব মোহাম্মদ এবাদুল করিম বুলবুল মহোদয়
(ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া ৫ নবীনগর)সমীপে——

জনাব সালাম ও শুভেচ্ছা নিবেন,আপনার অসুস্থতার কথা জেনেছি দুঃখ প্রকাশ পরে সুস্থতার সংবাদে শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

আমি আপনার নির্বাচনী এলাকার বাসিন্দা ও ভোটার,ছাত্রজীবনে মাঝে মধ্যে রাজনীতি করলেও এখন সেই স্বাদ প্রায় শূণ্য।
প্রবাস জীবন ২ দশক ছুঁইছুঁই করছে।
এলাকার টানে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সমাজসেবায় নিয়োজিত থাকতে হচ্ছে।আপনিও কিছুটা অবগত আছেন,

খুব কাছে থেকে একাধিকবার আপনাকে দেখার সুযোগ হয়েছিল,বসে কথা বলা ও শুনার সুযোগও সৃষ্টি হয়েছিল।
সেই কারণে আপনাকে অত্যন্ত ন্যায় পরায়ণ মনোভাব,সৎ ও ধর্মভীরু হিসেবে আমি আপনাকে মনে করি।
নবীনগরের মানুষও তাই জানে।

চেষ্টা করলে হয়তো আপনাকে ফোনে পাওয়ার সৌভাগ্যও হয়ে যেতো,কিন্তু এত কথা বলার সুযোগ হয়তো পেতামনা,এছাড়া আমি বলার চেয়ে লিখতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ বোধ করি,এর বাহিরেও খোলা চিঠির আরও কিছু সুবিধা রয়েছে।

মূল বিষয়ে আসি..

করোনার সংকটের কালে বিশ্বব্যাপী মানবজাতি যখন থমকে গেছে তখন সংবাদপত্রে দেখলাম ৬ মাসে নবীনগরে ১০খুন,বেশকিছু অপমৃত্যু!

মাননীয় এমপি,তুলনামূলক সুশৃঙ্খল একটা দেশে বসবাস করছি বলে হয়তো সংখ্যাটা অনেক বেশি মনেহয়,আপদকালীন এই সময়ে মানুষ যখন আত্মশুদ্ধি আর বিবেচক হওয়ার কথা ছিল তখন ইতিহাস আর ঐতিহ্য সমৃদ্ধ নবীনগর যেন খুন আর অপকর্মের চরনভূমিতে পরিনত হয়েছে।

আপনিও জানেন প্রত্যেকটি দুর্ঘটনার পিছনেও একটি ঘটনা বিদ্যমান,আপনি নিশ্চই আইন প্রয়োগকারী সংস্থার,প্রশাসন ও আপনার কর্মীবাহিনীদের যথাযথ নির্দেশনা দিচ্ছেন কিন্তু দুঃখের বিষয় কোনভাবেই উত্তরন ঘটছে না,

কিছু ক্ষেত্রে পুলিশের সাহসী পদক্ষেপের পরও কোন আসামিই আটক হচ্ছে না,এতে করে মানুষের মাঝে চরম অসন্তুোষ নিরাপত্তাহীনতা ও শঙ্কা বিরাজ করছে,প্রশাসনের উপর আস্থা নষ্ট হচ্ছে।

মাননীয় এমপি আমি প্রশাসনের বিষোদগার করছি না সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও স্থানীয় সংবাদের আলোকে বলছি সম্প্রতি নবীনগরের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বেশ নাজুক,আপনার কর্মী সমর্থকরা এবিষয়ে একমত হবে কিনা জানিনা,কিন্তু বাস্তবতা এটাই,তথ্য বা ডাটাও তাই বলছে।

একেকটা ঘটনা এতটাই নির্মম ও হৃদয়বিদারক যেন অন্তর ও নয়ন ভিজে যায়,হিংস্রতায় বুক কেপে উঠে।নৈতিক,পারিবারিক,একাডেমিক ও ধর্মীয় শিক্ষার পাশাপাশি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর বলিষ্ঠ ও দৃশ্যমান পদক্ষেপ অপরিহার্য হয়ে উঠেছে।

আপনি সাংবিধানিক ভাবে নবীনগরের সর্বোচ্চ ক্ষমতাবান পুরুষ,মহান করুনাময় তার পছন্দের মানুষগুলোকে ক্ষমতা দান করেন।

এপর্যায়ে আমি দুটি প্রস্তাব রাখছি..

১.নির্মমভাবে খুন হওয়া পরিবারগুলোকে আপনি বা আপনার প্রতিনিধি দিয়ে সান্তনা দেন,দরজায় উপস্থিত হউন,অথবা প্রতিনিধি পাঠান।
আমরা জানি আপনি অসুস্থ ছিলেন,এই স্বজনহারা মানুষগুলোর আহাজারি শোনেন।
নিশ্চই আল্লাহ আপনার ক্ষমতা ও ইজ্জত আরও ভাড়িয়ে দিবেন,সুস্থ্যতাও দান করবেন,সমাজেও একটা পজেটিভ লক্ষণ দেখা দেবে।

২.স্থানীয় নেতৃবৃন্দ,সমাজকর্মী এবং মিডিয়াকে সামনে রেখে প্রশাসনেকে দৃশ্যমান কঠোর নির্দেশনা দেন,যার মাধ্যমে সমাজে একটা মেসেজ নিক্ষেপ হবে যে..
কোন খুন খারাপী এবং অপকর্মে এমপি সাব কঠোর,এতে করেও সমাজে বিরাট পজেটিভ মনোভাব সৃষ্টি হবে।
আমি নিশ্চিত আপনার প্রতি মানুষের ভালবাসা আরও বেড়ে যাবে।

পরিশেষে বলতে চাই নবীনগরে আর কোন ছেলেহারা মায়ের আর্তনাদ দেখতে চাইনা। দিবালোক কুপিয়ে হত্যা দেখতে চাইনা।
অঙ্গহানি করে শ্লোগান দেখতে চাইনা।
কোন পিতার কন্যা নিঁখোজ অথবা মানষিক ভারসাম্যহীন নারীর ইজ্জত লুট হোক এসব দেখতে চাই না।
কেননা এরজন্য বাংলার দামাল ছেলেরা মুক্তির সংগ্রামে ঝাপিয়ে পরেনি।
লাখো মায়ের সন্তানরা আত্মহুতি দেয়নি!

বিশ্বাস করেন দেশটাকে ভালবাসি,এলাকাটাকে ভালবাসি,আপনাকে ভালবাসি বলেই লিখছি এর পিছনে অন্য কোন উদ্দেশ্য নেই।
আমাদের আগামী প্রজন্মের জন্য দেশটার বাজেটের বড় ভর্তুকি দেওয়া শিক্ষা স্বাস্থ্য খাতসহ কোন সেবাই নিচ্ছে না নিবেও না!
এগুলো উন্নয়নে আপনার কার্যকরী ভূমিকা প্রত্যাশা করি।

আপনার নির্বাচনী এলাকার মানুষের নিরাপত্তায় আরও একটু কঠোর ভুমিকা বিনীতভাবে আশা করি মাননীয় এমপি মহোদয়!

শুধু ভালবাসা দেশপ্রেম বা এলাকাপ্রেম থেকেই লিখা।

আপনার সুস্থ্যতা আর মঙ্গল কামনার পাশাপাশি ভাল থাকুক দেশটা ভাল থাকুক নবীনগরটা সেই কামনা সুদুর জাপান থেকে একজন ক্ষুদে  দেশপ্রমিক।

আব্দুল্লাহ আল মোকতাদির,
গ্রাম-লাউর ফতেহপুর
উপজেলা-নবীনগর,ব্রাক্ষণবাড়িয়া।